সেই মায়ের প্রতি যার স্বামী প্রতারক

এক প্রতারকের সাথে থাকা সহজ নয়, বিশেষ করে সে যদি আপনার স্বামী হয়। কি করে প্রেম এবং বিবাহের বন্ধন কে জাগিয়ে তুলবেন যখন বিশ্বাস ভেঙ্গে একবার ভেঙ্গে গেছে?

যখন স্বামী বিচ্যুত হয়, এটা কল্পনা করা যায় না যে এই পরিস্থিতি কখন বদলাতে পারে। কি করে আপনি আপনার সম্পর্ককে তিকিয়ে রাখবেন যখন আপনি জানেন সে এক পরস্ত্রীর সাথে ঘনিষ্ঠ হয়েছে?

প্রতারক স্বামীর সাথে ঘর করা এক স্বাভাবিক ব্যাপার নয়, কিন্তু অনেকেই এটা বেছে নেন।

কোনও কোনও মা তাদের সন্তানের খাতিরে এমন করে, আবার অনেকে মনে করে প্রেমের খাতিরে সম্পর্ক বাঁচিয়ে রাখা উচিত। তারা বোঝে যে বিশ্বাসঘাতকতা তাদের নিজেদের সম্পর্কেরই কোনও গভীর সমস্যার এক উপসর্গ মাত্র।

আপনি যদি এরকম এক মহিলা, আপনি হয়ত সেই অপমান সহ্য করেছেন যা এরকম সম্পর্কের সাথে আসে। আপনাকে হয়ত আপনার বন্ধুরা বলেছে যে আপনি দৃঢ় নন, আপনি আত্ম মর্যাদা কে বিসর্জন দিয়েছেন, এবং আপনি আপনার স্বামীকে আপনাকে আবার আঘাত করার ক্ষমতা দিচ্ছেন।

যদি আপনার সম্পর্ক অবমাননাকর নয়, তবে নিশ্চয় সেই সম্পর্ক বাঁচিয়ে তোলা যায়।

সাহায্য নিন

আপনার ঘনিষ্ঠ বন্ধু দরকার এই কষ্টকর সময়ে। আপনার স্বামী হয়ত আপনার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ ব্যাক্তি এবং প্রিয়জন ছিল, কিন্তু এখন আপনি তার ওপর বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছেন।

ভেঙ্গে যাওয়া সম্পর্ক আপনাকে একা গড়ে তুলতে হবে না। নিজেকে উজ্জ্বল এবং আনন্দময় লোকজন নিয়ে ঘিরে রাখুন। সেই সব নিকট জন যারা আপনার সুহৃদয়, যারা আপনার ভাল কামনা করে। তারা আপনার বন্ধু বা আত্মিয় হতে পারে, বা এই রকম অনান্য মহিলা যারা এই একই পরিস্থিতি তে রয়েছে।

মন খুলে নিজেকে প্রকাশ করুন

আপনার স্বামীর সাথে কথা বলুন, তাকে জানেন আপনি যদি নিজেকে দোষী মনে করেন। তাকে জিগ্যেস করুন সে এই রকম আচরন করল কি ভেবে।

নিশ্চিত করুন এই সময়ে আপনারা একা এবং দুজনে মাথা ঠাণ্ডা রেখে কথা বলুন। মনের কথা প্রানের কথা। এই কথাবার্তা য় কিছু ফল হবে না যদি আপনারা আবেগ পূর্ণ থাকেন, তাই মাথা ঠাণ্ডা রেখে কথা বলুন।

আপনার স্বামী কে ‘প্রলোভন থেকে দূরে’ থাকতে বলুন

যাতে আপনারা শান্তি পূর্ণ ভাবে আপ্নারদের সম্পর্ককে আবার গড়ে তুলতে পারেন তাই আপনার স্বামীকে বলুন সে যেন তার পূর্ব ব্যাবহার এবং সম্পর্কের সাথে কোনও যোগাযোগ না রাখে।

এর মানে সেই সব লোকজন, স্থান, ওয়েবসাইট, বা অ্যাপ থেকে দূরে থাকা যা তাকে তার সেই সম্পর্কের কাছে নিয়ে যেতে পারে।

“সব কথা খুলে বলা” এই নিয়ম নিরধারন করুন

আপানার যে রকম সুবিধে সেই রকম কিছু নয়ম নিরক্সধারন করুন, যেমন দুজনে দুজনের ব্যাপারে সব কিছু জিগ্যেস করতে পারে।

বা আপনি তাকে সব সময় জিগ্যেস করতে পারেন যে সে কোথায় এবং কার সাথে আছে।

এটা হয়ত ভাল শোনায় না কিন্তু যখন আপনার বিশ্বাস একবার ভেঙ্গেছে তখন এরকম করা মোটেই অপরাধ নয়। অনেক দম্পতি কেই এই রকম পরিস্থিতি তে চরম উপায় মেনে নিতে হয় হারিয়ে যাওয়া বিশ্বাস এবং ভালবাসাকে ফিরিয়ে আনতে।

অন্তরঙ্গতা ফিরিয়ে আনতে তাড়াহুড়ো করবেন না

প্রত্যেক মহিলার ঘনিষ্ঠতার প্রয়োজন আলাদা। আপনি যদি ঘনিষ্ঠতা সহবাস এর ফিরিয়ে আনতে চান তবে নিশয় তা করুন।

কিন্তু অনেকেই এরকম যারা আগে নিজেদের মানসিক ক্ষত কে সারিয়ে তুলতে চান, তারা যদি সহবাসে একটু সময় নিতে চান তাতে কোনও ক্ষতি নেই।

দম্পতি হিসেবে সবার প্রয়োজন এবং অনুভব আলাদা, তাই আপনার ক্ষেত্রে যা মানানসই আপনি তাই বেছে নিন। যা জরুরি তা হল অন্তরঙ্গ অনুভব গুলি ফিরিয়ে আনা, তা সে যে ভাবেই আসুক না কেন।