যে দশটি কথা প্রত্যেক নোতুন মায়ের শোনা উচিত

lead image

১। এখন ঘুমানো ভাল

কিভাবে আপনার শিশুর যত্ন নেবেন সে কথা ভেবে স্নায়ু দুর্বল হয়ে যাওয়া খুবই স্বাভাবিক যখন হয়তো দুশ্চিন্তার বশে আপনি সামান্য একটু ঘুমিয়ে নিতেও পারছেন না। কিন্তু বিশ্রাম না নিলে আপনি ক্লান্তির চোটে তো কাজই করতে পারবেন না। কাজেই যদি একটু ঘুমিয়ে নেবার ইচ্ছে হয়, তাতে দোষের কিছু নেই - আপনি যদি ভাল রকম বিশ্রাম নিয়ে তরতাজা হয়ে ওঠেন, তাহলেই আপনার বাচ্চার যত্ন আরও ভালভাবে হবে।

২। তিনটি গভীর শ্বাস নিন, তারপর আবার চেষ্টা করুন

আগের বার ছোট্ট সোনাটি খুব কান্নাকাটি করছিল বলে বাচ্চাকে চান করাতে ভয় পাচ্ছেন? তিনটি গভীর শ্বাস নিন, তারপর আবার চেষ্টা করুন। মনে রাখবেন, মায়েদের জন্য ঠিক বা ভুল বলে কিছু নেই এবং মাতৃত্বের যাত্রাপথে আপনি সর্বদাই শিখবেন। তাই, আশানুরূপ ফল না পেলে কখনওই খুব বেশী হতাশ হবেন না। আপনার সহজাত প্রবৃত্তির ওপর ভরসা রাখুন আর করে ফেলুন। সাফল্য পাবার জন্য পরের বার কি করতে পারেন সেটা নির্ধারণ করুন।

যতই হোক, মাতৃত্বের ঠিক বা ভুল বলে কিছু নেই তাই এ সব ভেবে নিজেকে মেরে ফেলবেন না। নিজের ওপর মায়া রাখুন আর চেষ্টা চালিয়ে যান।

৩। নিখুঁত না হোক, উন্নতি দরকার

তাঁদের বাচ্চারা সঠিক ভাবে বেড়ে উঠছে কিনা বা যথাযথ সময়ে নির্ধারিত মাইলফলক ছুঁতে পারছে কিনা তা নিয়ে মায়েরা ভীষণ চাপে থাকেন। কিন্তু চাপে ভেঙে না পড়ে মাথায় রাখুন যে প্রতিটি শিশুই তাদের নিজস্ব গতি ও সময়ে বেড়ে ওঠে। আপনার নিজের অনুভূতির কথা শুনুন (আর অবশ্যই আপনার শিশুটির ডাক্তারের!) আর শান্ত থাকুন যদি আর সব দিক দিয়ে আপনার বাচ্চা ঠিক থাকে।

৪। সাহায্য গ্রহণ করা উচিত

নিখুঁত মা বলে কিছু হয় না। সবাই তাদের বাচ্চার ভালর জন্য যথাসম্ভব চেষ্টা করে, সোস্যাল মিডিয়ার ওই সব ঝলমলে মা-ও-আমি ছবিগুলিতে যাই দেখানো হোক না কেন, কিছুই যায় আসে না। মাতৃত্ব প্রচুর কাজ ও আত্মনিবেদন দাবী করে, তাই কেউ যদি আপনাকে সাহায্য করার প্রস্তাব দেয়, ভাববেন না যে আপনি যথেষ্ট ভালভাবে পারছেন না বলে এরকম বলছে। একটি শক্তপোক্ত সাহায্যের ব্যাবস্থা থাকলে কাজগুলি অনেক সহজ হয়ে ওঠে।

৫। কেঁদে হৃদয়ভার লাঘব করুন

হ্যাঁ, এটা একদম ঠিক - মাঝে মাঝে একবার ভেতরের বাষ্প বেরিয়ে যেতে দিন। এক একটা দিন আসে যখন নোতুন মায়েদের মন খারাপ হয়, এবং সন্তানের আগমনের সাথে সাথে আসা যাবতীয় দায়িত্বের চোটে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। এইসব চিন্তা আপনাকে পাঁকে নিমজ্জিত করার পরিবর্তে আপনার ছোট্টটির থেকে খানিকটা দূরে সরে যান - এক দফা কান্না এইসব অনুভূতি দূর করতে সাহায্য করবে আর আপনার মাথার ভার লাঘব হবে।

কান্না দুর্বলতার লক্ষণ নয়; বরং নোতুন মা যা অনুভব করেন, এটি সেই সব ব্যাথাবেদনা এবং হতাশা দূর করার  একটি পথ। তাছাড়া, যখনই আপনার এরকম অনুভূতি হবে একথা ভেবে স্বস্তি পেতে পারেন যে আপনি কাঁদছেন কারণ আপনি আপনার বাচ্চাকে এত বেশী ভালবাসসেন যে আপনি এখন অন্তরের গভীরে আগের থেকে অনেক বেশী আবেগ অনুভব করেন।

৬। আপনি পারবেন। এটা করুন।

আপনি একদিন নিজেকে সর্বকালের সেরা মা বলে মনে করবেন, আর এরকম দিনও আসবে যখন আপনার মনে হবে যে আপনি এই সব মাতৃত্বের সংজ্ঞার কাট আউট নন। এইসব আবেগ নিয়ে কখনও এগোন কখনও পিছানো সম্পূর্ণ স্বাভাবিক এবং সর্বদা নিজেকে মনে পড়াবেন যে আপনার বাচ্চার ন্যাপকিন বদল করা থেকে শুরু করে ঘুম পাড়ানো পর্যন্ত যে সব কর্তব্য আর কাজ আপনাকে করতে হয়, সে সবই আপনি করতে  পারবেন।

৭। এটি সহজ হবে

যখন আপনি দিনে ৩০ মিনিট ঘুমাচ্ছেন এবং পুরোপুরি খাবারটুকু খেয়ে নেবার সময় পর্যন্ত নেই, দুঃখে নিমজ্জিত হওয়া এবং এরপর জীবন এভাবেই কাটবে বলে ভাবা সহজ। কিন্তু সাহস রাখুন,  মায়েরা - এটা সহজ হওয়া সম্ভব। শিশুরা একদিন বড় হবে আর নিজেরাই নিজেদের কাজ করে নিতে পারবে। আপনি তখন এই দিনগুলির প্রতি মধুর স্মৃতি রূপে ফিরে তাকাবেন, যখন এই পৃথিবীর সবাইকে ছেড়ে, একমাত্র আপনাকেই আপনার বাচ্চাটি সবচেয়ে প্রয়োজনীয় বলে মনে করত।

৮। মা আনন্দে তো শিশুও আনন্দে।

অনেক মা যতক্ষণ জেগে থাকেন, প্রতিটি মিনিট তাঁদের নবজাত শিশুর জন্য উৎসর্গ করেন এবং যখন ঘুমান তখনও শিশুর কোনও প্রয়োজন হবার মুহূর্তেই জেগে ওঠেন। সন্তানের প্রতি এই আত্মনিবেদন পরম আশ্চর্যের, কিন্তু যদি কখনও বিন্দুমাত্র মনে হয় যে আপনি নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছেন তাহলে মনে রাখবেন যে এক পা পিছিয়ে গিয়ে এমন কিছু করা ভাল যাতে আপনি আনন্দ, স্বাস্থ্য এবং সম্পূর্ণতা ফিরে পান। শিশুরা আনন্দিত মায়ের কাছ থেকে অনেক উপকার পায় - মায়ের আনন্দ শিশুদের দিকে সংক্রমিত হয়।

৯। আপনার চলার পথে ভরসা রাখুন

আপনার নিম্নের মধ্যে নিম্নতম পর্যায়ে, যখন আপনি ভেঙে পড়ার মুহূর্তে, তখন হয়তো ভাবেন যে আপনার বাচ্চাটি আরও ভাল থাকত যদি এমন একজন মায়ের পেটে জন্মাত, যে জানে যে সে কি করছে। এইভাবে চিন্তা করা একেবারে বন্ধ করুন -- আর কোনও মা নেই যে আপনার চাইতে সুখী, বেশী সক্ষম, অথবা আপনার চাইতে ভালভাবে করতে পারে। এটি জেনেই শিশুটি আপনাকে দেওয়া হয়েছে যে আপনি এবং আপনার বাচ্চা নিখুঁত জোড় বাঁধবে। মা হয়ে আপনিই জানেন যে কিসে আপনার বাচ্চার মঙ্গল হবে, তাই সর্বদা আপনার সহজাত প্রবৃত্তির ওপর ভরসা রাখুন আর আপনি যা ভাবছেন সেটাই ঠিক ভেবে এগিয়ে যান।

১০। আমার ভালবাসা এবং যত্ন যথেষ্টর চেয়েও বেশী।

যখন আপনার বাচ্চা জন্ম নিয়েছিল, তখন সম্ভবত আপনি নিজের স্নেহের আকুলিতে বিস্মিত হয়েছিলেন এবং আপনার হৃদয় উন্মুক্ত হয়েছিল যেমনটা আগে কখনও হয়নি। তাই, সেই দিনগুলিতে যখন আপনি মনে করেছিলেন যে এগিয়ে যাবার পথে আপনি সবকিছু মানিয়ে নেবেন আর আজ যখন আপনার মনে হচ্ছে যে আপনি যা করছেন তা যথেষ্ট নয়, এই কথাটা মনে রাখবেন : আপনার সন্তানের জন্য আপনি যা কিছু করেন সবই ভালবাসার জন্য, এবং সেটাই, আপনি যেটুকু করেন, তাকে যথেষ্টরও বেশী করে তোলে।

বেবি ডাভ বিশ্বাস করে যে প্রকৃত মা ছাড়া 'নিখুঁত মা' বলে কিছু হয় না। ঠিক যেমন আপনার পথ ছাড়া ঠিক পথ বা ভুল পথ বলেও কিছু হয়না!