মল এর এস্কেলেটরে ছোট্ট মেয়েটির চুল আটকে গিয়েছিল

সম্প্রতি একটি ছোট্ট মেয়ের চুল মল এর চলমান সিঁড়িতে আটকে গিয়েছিল। ঘটনার ভিডিওতে দেখা যায় যে মেয়েটি ব্যথায় কাঁদছে ...

এই সত্যিই দুঃখের খবরটি আমাদের চোখে পড়েছে। একটি মেয়ে চলমান সিঁড়িতে ফেঁসে গিয়েছিল কারণ, তার চুল এবং বাহ্য সিঁড়ির ফাঁকে আটকে গিয়েছিল।

মেয়ের চুল চলমান সিঁড়িতে আটকে গিয়েছিল

আপাতদৃষ্টিতে, ফিলিপাইন্সের ডাভাও সিটিতে সবে হাঁটতে শেখা শিশুটি যখন চলমান সিঁড়িতে নীচে নামছিল, তার হাতের খেলনাটি পড়ে যায়। যখনই খেলনাটি তোলার জন্য সে নীচু হল অমনি সিঁড়ির শেষ ধাপ এবং চলমান সিঁড়ির তলাটার মাঝখানের ফাঁকে তার চুলগুলি ঢুকে গিয়ে মাথাটা ধাতব স্তর পর্যন্ত টেনে নিল।

কাছাকাছি দাঁড়িয়ে থাকা একজন ব্যক্তি আপৎকালীন থামাবার বোতাম টেপার আগেই তার বাহুও যন্ত্রের মধ্যে ফেঁসে গেল।

শ্রীমতী ভ্যানেসা বাগুইয়ম এই ঘটনার একটি ভিডিও ক্লিপ রেকর্ড করেছিলেন। যখন সেটি তিনি অনলাইনে পোস্ট করে দেন, তখন খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। ''ছোট্ট মেয়েটির খেলনা পড়ে গেল, তাই সে ওটি কুড়ানোর চেষ্টা করছিল, আর তখনই তার চুল যখন এস্কেলেটরে ধরা পড়ল," শ্রীমতী ব্যাগুয়াম বললেন।

"সে বেচারা ব্যথায় চীৎকার করছিল কারণ, তার হাতের একটা অংশও আটকে গিয়েছিল, ত্বক এবং পেশী চিমটে ধরেছিল। এটা দেখে মায়া হচ্ছিল। তার জন্য আমার এত খারাপ লাগছিল, কারণ কেউ কিছু করতে পারছিল না," তিনি আরও বলেন।

এই ফুটেজে দেখা গেছে যে, মেয়েটি ব্যথায় কাঁদছে, তার বাবা তাকে মুক্ত করার চেষ্টা করছেন, আর নাগাড়ে মেশিনের গোড়ায় ধাক্কা মারছেন।

আটকা পড়া চুল কেটে ফেলার জন্য একটি কাঁচি নিয়ে মল কর্মীরা এলেন। শপিং মলের অপারেশন অফিসার জীন ক্যানেটানও ওখানে এলেন এবং মেশিনের গোড়ার স্ক্রু খুলে মেয়েটির হাত মুক্ত করলেন।

জনৈক মুখপাত্র বললেন, "এখন সব ঠিক আছে এবং মেয়েটিও নিরাপদে আছে। সবকিছুর ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।"

ব্যথায় কাঁদতে থাকা মেয়েটির ভিডিও দেখা সত্যিই দুঃখের, আমরা আশা করি, সে এখন ঠিক আছে ...

চলমান সিঁড়ি ব্যবহার করার সময় এই নিরাপত্তা নিয়মগুলি মনে রাখবেন :

 

১। আপনার বাচ্চা ওঠার আগে

নিশ্চিত করুন যে আপনার সন্তানের শরীরে কোনও ঝুলন্ত রশি নেই যা ফেঁসে যেতে পারে -- মিটেন, ফিতে, জুতোর লেস, অন্যান্য পোশাক বা ঝুলন্ত জিনিষ।

২। সবসময় আপনার সন্তানের হাত ধরে রাখুন।

চলমান সিঁড়ির ওপর দাঁড়িয়ে থাকার সময় আপনার বাচ্চার মুখ পুরো সময় সামনের দিকে রাখুন।

৩। চলমান সিঁড়ির ওপর কোনও খেলা নয়।

তাদের ধাপের কিনারা এড়াতে বলুন এবং কখনো তাদের খেলতে বা ধাপের ওপর বসতে দেবেন না।

৪। যদি আপনার সঙ্গে স্ট্রলার থাকে, লিফট ব্যবহার করুন।

আপনি যদি একটি স্ট্রলার ব্যবহার করছেন, যতটা সম্ভব লিফট ব্যবহার করুন। বেশ কয়েক বছর ধরে চালানো একটি গবেষণায় দেখা গেছে, চলমান সিঁড়িতে শিশু সম্বন্ধীয় আঘাত ও দুর্ঘটনার সংখ্যা যেখানে ১৩,০০০, সেখানে ৭২৩ টি শুধু স্ট্রলারের ক্ষেত্রে ঘটেছিল।

এইসব ক্ষেত্রে, বাচ্চারা আসলে স্ট্রলার থেকে পড়ে গিয়েছিল। এর চেয়ে লিফটের জন্য কিছুটা সময় অপেক্ষা করা ভাল যাতে নিরাপদে থাকেন।

৫। বাচ্চাদের কোলে রাখুন।

আপনার ছোট্টটির পক্ষে পদক্ষেপ করে চকিতের মধ্যে নেমে পড়ার মতো সমন্বয় করার ক্ষমতা বা নৈপুন্য হয়তো নেই -- এতে বয়স্কদেরও অনেক সময় লাগে।

যদি আপনার বাচ্চাটি লাফিয়ে দেয়, তাহলে হয়তো ভারসাম্য হারিয়ে ফেলবে এবং পড়ে যাবে। তাই সর্বদা আপনার বাচ্চাকে তুলে নিন এবং চলমান সিঁড়ি থেকে নামুন।

৬। "চিরুনি"র ওপর দিয়ে পদক্ষেপ।

যেখানে চলমান সিঁড়ির ধাপগুলি মেঝের নীচে মিলিয়ে যায় আর আপনি নামেন বা চাপেন, মূলতঃ সেখানেই এই চিরুনির মতো করা থাকে। সেখানে একটি ছোট ফাঁক আছে, যেখানে আপনার বাচ্চার পায়ের পাতা ফাঁসতে পারে। ওপর দিয়ে পদক্ষেপ করে এটি সম্পূর্ণভাবে এড়িয়ে চলুন।

৭। ঠিক মাঝখানে।

সম্ভব হলে ঠিক মাঝখানে দাঁড়ান। চলমান সিঁড়ির যে কোনও পাশে দাঁড়ালে জটিল পরিস্থিতি হতে পারে।

৮। জুতোর ধরনের ওপরও নির্ভর করে।

প্লাস্টিকের জুতো পরা থেকে বিরত থাকুন যেগুলি নমনীয় হয় এবং গর্ত থাকে -- ক্রকস বা অনুরূপ ধরণের পাদুকার কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে রিপোর্ট আছে। আপনার বাচ্চা চলমান সিঁড়ির পাশ দিয়ে জুতো গলিয়ে দিতে পারে, যাতে ঘর্ষণ হতে পারে এবং একটি পা ভেতরে ঢুকে যাবার ঝুঁকি থাকবে।

৯। আপনার চারপাশ দেখে নিন।

চলমান সিঁড়িতে চড়ার আগে, আপনার চারপাশে তাকান এবং কি ঘটছে সে সম্বন্ধে সচেতন থাকুন। আপনি হয়তো আপনার বাচ্চা সামলাতে ব্যস্ত আছেন কিন্তু এক মুহূর্ত দাঁড়িয়ে আপনার চারপাশের মানুষ এবং জিনিষ গুলি দেখে নিন।

আপনা্কে ব্যস্তবাগীশ মানুষদের নিয়ে সচেতন থাকতে হবে; তারা আপনাকে এবং আপনার বাচ্চাকে ঠেলে সরিয়ে দিতে পারে। সুতরাং, আপনার সেরা বাজী হবে বাচ্চাকে নিয়ে চড়ার আগে অনেকগুলি ধাপ খালি  ছেড়ে দেওয়া।

১০। বাজপাখীর মতো আপনার বাচ্চাকে নজরে রাখুন।

আপনার বাচ্চা হয়তো নীচে বসতে, পিছন দিকে মুখ ফিরে থাকতে বা এমনকি পড়ে যাওয়া কোনও জিনিষ তুলে নিতে প্রলুব্ধ হতে পারে। এর ফলে কিন্তু যে কোনও বিপর্যয় ঘটে যেতে পারে বিশেষতঃ, চলমান সিঁড়ি শেষ হবার সময়।