নির্দেশক বিক্রম ভাট অকপট জানান কেন তিনি সুশ্মিতা সেনের সাথে তার সম্পর্কের ব্যাপারে অনুশোচনা করেন

নির্দেশক বিক্রম ভাট অকপট জানান কেন তিনি সুশ্মিতা সেনের সাথে তার সম্পর্কের ব্যাপারে অনুশোচনা করেন

বিবাহ বর্হিভূত সম্পর্ক আপনার এবং আপনার পরিবারকে ভীষণ আঘাত করতে পারে, বিশেষত তার পরিণাম যদি বিবাহ বিচ্ছেদে হয়। ঠিক সেতাই হয় নির্দেশক বিক্রম ভাটের পরিবারের সাথে যখন তিনি বিশ্ব-সুন্দরি এবং অভিনেত্রী সুস্মিতা সেনের প্রেমে পড়েন।

এই সম্পর্ক তার জিবনের সবচেয়ে বড় অনুতাপ, এই কারণে তার বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে তার স্ত্রী আদিতির সাথে। ভাট বহুবার আত্মহত্যাও করতে চান।

“তার জন্য সুস্মিতা দায়ি নয়। এর দায় একমাত্র আমার, আমি আমার জীবন নষ্ট করেছি। আমার ডিভোর্স হয়ে গেছিল তখন, গুলাম তখনও রিলিজ করেনি। আমি শুধু সুস্মিতা সেনের বয়ফ্রেন্ড হিসেবেই বিখ্যাত, আমি ডিপ্রেশানে ভুগতাম, আমার মেয়েকে খুব মিস করতাম... আমার জীবন একেবারে খারাপ করে ফেলেছিলাম। আমি ছিলাম এক ধ্বংসাবশেস,”  তিনি বলেন এক সাক্ষাৎকারে।

এখন তিনি অনুশোচনা করেন যে তিনি তার স্ত্রী ও মেয়ে কে ছেড়ে গেছিলেন, তিনি দুঃখিত যে তিনি তাদের কষ্ট দিয়েছেন। তার বিবাহ বর্হিভূত সম্পর্ক হয় সুস্মিতা সেন এবং আমিশা প্যাটেল এর সাথে এবং এদেরও তিনি দুঃখিত করেছেন। তিনি এও জানান যে তিনি কখনই এদেরকে বিয়ে করতে চাননি।

“না আমি কখনই এদের বিয়ে করতে চাইনি। আর আমার তাদের প্রতি কোন তিক্ততাও নেই। অনেক সময় বয়ে গেছে এখন,” তিনি বলেন।

 

A post shared by Sushmita Sen (@sushmitasen47) on

বিক্রম জানান যে ব্যাপারটা এতটা কঠিন হয়ত হত না যদি তিনি ক্ষমতা রাখতেন তার স্ত্রী আদিতির সাথে খোলামেলা ভাবে কথা বলতে।

“আমি দুঃখিত যে আমি আমার স্ত্রী ও মেয়েকে ত্যাগ করেছিলাম, আমি দুঃখিত যে আমি তাদের কষ্ট দিয়েছি। আমি মনে করি যখন আপনি ভীতু, তখনি আপনি চালাকি করতে চান। আমি অদিতির মুখমুখি হতে সাহস যোগাতে পারিনি। আমি দুঃখিত যে আমি সাহস যোগাতে পারিনি, আমি যদি একটু সাহসী হতাম আজ হয়ত আমার জীবন সুন্দর হত। কিন্তু আমি যখনই পিছন ফিরে দেখি, আমার মনে হয় আমি অনেক কিছু শিখেছি, জীবন শেখার জন্য, আর এই ঘটনা আমাকে কিছু শিক্ষা নিশ্চয় দিয়েছে” । তিনি বলেন।

 

A post shared by Ameesha Patel (@ameeshapatel9) on

ভাট এই সব জানান তার উপন্যাস “এ হ্যান্ডফুল অফ সানশাইন” এর প্রকাশের সময়। অনেকেই মনে করেন এই উপন্যাস আসলে তারই জীবন কাহিনি।

তিনি এও জানান যে এখন তার স্ত্রী ও মেয়ের সাথে তার সম্পর্ক আবার স্বাভাবিক কিন্তু তিনি আবার বিয়ে করতে চান না।

“আমি আমার বিবাহে বিশ্বাস করি না, বিবাহ এক সেকেলে এবং অপ্রয়োজনীয় প্রচলন। এটা আপনাদের বাড়ির সেই ঝাড়বাতির মতন যার প্রয়োজন ফুরিয়ে গেছে। বিবাহ দরকার ছিল আদিকালে, যখন মহিলা এবং পুরুষ একে ওপরের ওপর নির্ভরশীল ছিল,” বলেন বিক্রম।

 

Krishna's gift, my Krishna! Nand gher anand bhayo Jai kanihya lal ki! #daughter #krishnabhatt #vikrambhatt

A post shared by Vikram Bhatt (@vikrampbhatt) on

কীভাবে আপনার বিবাহকে পুনরায় জাগিয়ে তুলবেন 

বিক্রম ভাটই শুধু একমাত্র নন যার বিবাহ ভেঙ্গে যায়। অনেক দম্পতিই এই ধরনের টানাপড়েনের মধ্যে ধরা পরে এবং জানেনা যে কীভাবে এই বিবাহ কে বাঁচান যায়। পরে অনুশোচনা করার চেয়ে সময় থাকতে চেষ্টা করা দরকার।

১। ক্ষমা করুন এবং ভুলে যান – ভুল গুলিতে আটকে না থেকে ক্ষমা করুন এবং ভুলে যান। এটা বলা সহজ কিন্তু করা কঠিন, তাই কখনও চুপ থেকে সময় কে নিজের কাজ করতে দেওয়া উচিত। মনে রাখবেন আপনি যদি চান আপনার বিবাহ মজবুত থাকুক তবে কিছু কিছু ব্যাপারকে উপেক্ষা করতে হবে।

২। নতুন করে শুরু করুন – আপানর অতীত কে পেছনে রেখে আপনার সম্পর্ক এমন ভাবে গড়ে তুলুন যেন সেটা একেবারে নতুন। আপানর পার্টনার এর সাথে যা করতে ভালবাসেন তা করুন, তার সাথে সময় কাটান।  একসাথে ছুটিতে যান, এবং আবার সব কিছু নতুন করে শুরু করার ব্যাপারে ভাবুন।

৩। আশাবাদি হন – নেতিবাচক চিন্তাধারা কোন ভাল ফল দেয় না। তাই আপনার বিবাহ এবং জীবনসঙ্গীর ব্যাপারে নিরপেক্ষ এবং যথার্থ ধারনা গড়ে তুলুন।

Any views or opinions expressed in this article are personal and belong solely to the author; and do not represent those of theAsianparent or its clients.

Written by

theIndusparent