কিভাবে নিশ্চিন্ত হবেন যে আপনার গোলগাল বাচ্চাটি স্বাস্থ্যবানও

যদিও এতে কোনও সন্দেহ নেই যে গোলগাল শিশুদের দারুণ সুন্দর দেখায়, কিন্তু কখনও কখনও যদি কোনও শিশু কিঞ্চিৎ বেশী ওজনের হয়, তাহলে ভবিষ্যতে তা স্থূলতার কারণ হতে পারে যার ফলে নানা স্বাস্থ্যজনিত সমস্যা দেখা দিতে পারে।

আমরা সবাই আমাদের গোলগাল বাচ্চাটিকে ভালবাসি আর কেনই বা বাসব না! তাদেরকে দেখতে নিখুঁত ফুটফুটে লাগে আর আমরা তাদের কোলে না নিয়ে থাকতে পারি না, তাদেরকে আদর করে আর চুমু খেয়ে আমরা ভাবি যে বাচ্চাটি যেন চিরদিন এরকমই ছোট্ট আর সুন্দরটি থাকে।

আমরা, সব মায়েরাই আমাদের কোলে এরকম একটি গোলগাল বাচ্চাকে অনুভব করতে চাই, তাই না?

যদিও এতে কোনও সন্দেহ নেই যে গোলগাল শিশুদের দারুণ সুন্দর দেখায়, কিন্তু কখনও কখনও যদি কোনও শিশু কিঞ্চিৎ বেশী ওজনের হয়, তাহলে ভবিষ্যতে তা স্থূলতার কারণ হতে পারে যার ফলে নানা স্বাস্থ্যজনিত সমস্যা দেখা দিতে পারে।

শৈশবকাল এমন একটা সময় যখন শিশুরা তাদের সবচেয়ে সক্রিয় অবস্থায় থাকে, তাই যদি আপনি ওজনের বেশী বৃদ্ধি দেখতে পান বা আপনার বাচ্চাটির ডাক্তার বলে থাকেন যে আপনার শিশুটির ওজন একটু বেশীর দিকে, তা সত্বেও খুব একটা ভয়ের কিছু নেই।

এখনই যদি কিছু সুস্থ রুটিন মে্নে চলেন তাহলে আপনার বাচ্চাকে চমৎকার স্বাস্থ্যকর উপায়ে দারুণ সুন্দর আর আদরণীয় তো দেখাবে।    

অবশ্য আজকাল আমরা সবাই জানি যে জাঙ্ক এবং ভাজা খাবার ও সেই সঙ্গে আরও অনেক কিছু খাওয়া উচিত নয়, এবং সেগুলি মেনে চলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই এখন, এইসব ছাড়াও, আমরা এখানে আরও ৪ টি দারুণ কার্যকর পরামর্শ দিতে চাই।

আপনার সুন্দর শিশুটিকে স্বাস্থ্যবান রাখতে ৪ টি দারুণ মজার আর সেইসঙ্গে কার্যকর পরামর্শ

১। প্রোটিন দিন : আপনার শিশুর দৈনিক খাবারে প্রোটিন থাকা নিশ্চিত করে যে ভুল খাবার না খেয়ে আপনার শিশুটি পূর্ণ খাবার পাচ্ছে।

এটি হরমোনগুলিকে মুক্ত করতেও সাহায্য করবে যা শরীরের মধ্যে সংরক্ষিত চর্বি ব্যবহার করে তাকে শক্তিতে রূপান্তরিত করবে। প্রোটিনগুলির কিছু সুস্থ উৎস হল দুধ, সোয়া দুধ (যদি আপনার শিশুর নিয়মিত দুধ পাবার উপায় না থাকে), পনির, দই, মাছ, মুরগীর মাংস, মটরশুঁটি এবং ডিম।

২। শারীরিক কার্যকলাপে উৎসাহ দিন : আমাদের ব্যস্ত জীবনশৈলীতে, আমরা প্রায়ই শিশুদের ব্যস্ত রাখতে নানা গ্যাজেট ধরিয়ে দিই, যাতে আমরা হাতের অনেক কাজ সেরে নিতে পারি।

যাইহোক, হয়তো আমরা এরকম দু’একবারই করি কিন্তু তবুও এটি শীঘ্রই একটি অভ্যাসে পরিণত হয়, এবং শিশুরা স্ক্রীণে আবদ্ধ হয়ে পড়ে আর অন্য কিছু না করে বেশিরভাগ সময় বসেই থাকে। এর পরিবর্তে, কেন বাড়ির ভেতরে বাইরে কিছু কাজের দায়িত্ব দিয়ে তাদের ব্যস্ত রাখি না?

Outdoor playtime is more beneficial

উদাহরণস্বরূপ, আপনার সন্তানের বয়স অনুযায়ী, আপনি তাদের কিছু কিছু কাজ দিতে পারেন যেমন, আলমারিতে বাসন-কোসন তুলে রাখা, পোশাকগুলি কাবার্ডে গুছিয়ে রাখা, খেলনাগুলিকে দূরে তুলে রাখা, অথবা আপনি যখন রান্না করছেন, তখন কয়েকটি আলাদা রঙের শস্য মিশিয়ে দিয়ে তাদেরকে সেগুলি বেছে বেছে আলাদা করতে বলতে পারেন বা সেগুলিকে একসাথে মিশিয়ে দিতে বলতে পারেন (আর এগুলি দিয়ে ডাল বা খিচুড়ি রান্না করতে পারেন!)।

৩। গাড়ি না নিয়ে হাঁটুন : কাছাকাছি কোথাও যাবার সময় গাড়ী বা অটো এড়িয়ে চলুন, পরিবর্তে হাঁটার চেষ্টা করুন। আপনি আপনার ফোনে একটি মজাদার হাঁটার ট্র্যাকিং অ্যাপ ইনস্টল করে নিতে পারেন এবং আপনার বাচ্চাকে দেখাতে পারেন যে আপনারা কতটা পথ হাঁটলেন।

আপনাকে যা করতে হবে তা করে ফেলার এটা একটা মজাদার উপায় আর সেইসঙ্গে আপনি নিশ্চিত হবেন যে আপনি যথেষ্ট সক্রিয় এবং আপনার বাচ্চাটিও সুস্বাস্থ্যের অধিকারী। আপনাদের মধ্যে অনেকেই হয়তো জানেন যে আমি হাঁটতে ভালবাসি, আমি প্রতিদিন কিংবা একদিন অন্তর রাত্রে ১০ কিমি হাঁটি, এবং ইদানিং আমার মেয়েকেও প্রতিদিন ৪ কিমি হাঁটাই। বলা বাহুল্য, সে খুবই ক্লান্ত হয়ে পড়ে কিন্তু তবুও হাঁটতে ভালবাসে!

৪। একটি খেলা খেলুন : যদি আপনার শিশুটি খুবই ছোট, তাহলে আপনি একসঙ্গে কোনও খেলা খেলতে পারেন যেমন ‘আমাকে ধর’, ‘বলটি ধর’ এবং এমন আরও কিছু, যা ছুটে বেড়াতে উৎসাহিত করে।

আপনারা এক মজার ভিডিওর সঙ্গে একসাথে নাচতে পারেন এবং এভাবে নিজের দেহের আকৃতিও ফিরে পেতে  পারেন! যদি আপনার বাচ্চা একটু বয়স্ক হয়, তবে আপনি তাকে কোনও স্পোর্টস ক্লাসে ভর্তি করতে পারেন যেমন টেনিস, বাস্কেটবল, ফুটবল বা এমনকি সাঁতার। আর হ্যাঁ, এটি আরও মজার হতে পারে যদি আপনিও এতে যোগদান করেন!