"আমাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হতে চলেছে, এবং কাউন্সেলর এই পরামর্শ দিয়েছেন !!"

lead image

আপনাদের মধ্যে কতজনের বিবাহিত জীবনে সমস্যা দেখা দিয়েছে?  আমি নিশ্চিত যে আমাদের সবারই, ঠিক কিনা?

আমার বিয়ে প্রেম করে এবং আমার জীবনে সেই প্রথম ব্যক্তি যার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হয়েছিলাম।  প্রথম পরিচয়ের আগে আমরা দুজনেই দুজনের জন্য মর্মপীড়া অনুভব করেছি, কিন্তু একবার পরিচিত হবার পর আমরা উপলব্ধি করলাম যে সেই ব্যক্তিটিকে খুঁজে পাওয়া গেছে, যার সঙ্গে জীবন কাটানো যায়।

আমরা দীর্ঘ চার বছর ধরে ডেটিং করেছি আর সেই সময় আমি কখনোই নিশ্চিততর ছিলাম না যে আমি জীবনে কি চাই।  আমি তার সঙ্গে সত্যি করেই সুখী ছিলাম এবং সেও আমাকেই চাইত।  আমরা প্রেমে পড়েছিলাম, আমরা আনন্দে ছিলাম এবং তাড়াতাড়ির মধ্যে বিয়ে করে ফেলার জন্য তৈরী হচ্ছিলাম।  

বিয়ে হল এবং আমাদের জীবন একসঙ্গে শুরু করার জন্য আমরা একটি নোতুন শহরে গেলাম।  সত্যিই চমৎকার!  সে ইতিমধ্যেই তার কর্মক্ষেত্রে উঁচু পদে এবং প্রচন্ড ব্যস্ত ছিল।  যে শহরে আমরা গিয়েছিলাম, সেখানে আমিও আমার চাকরিতে বদলী পেয়ে গেলাম এবং আমরা দুজনেই একসঙ্গে জীবন শুরু করার জন্য প্রস্তুত ছিলাম।      

আমি গর্ভবতী হলাম এবং বাড়িতে থাকা শুরু করলাম ...

প্রথম বছরেই, আমি গর্ভবতী হলাম, এবং আমরা উভয়ই সিদ্ধান্ত নিলাম যে এসময় বাড়িতে থেকে আমার স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়াই জন্য সব চেয়ে ভাল হবে এবং তারপর শিশুটির সঙ্গেও থাকতে হবে।  এটি একটি যৌথ সিদ্ধান্ত ছিল। গর্ভাবস্থার প্রথম কয়েক মাস পর থেকেই, আমার স্বামী আরো ঘন ঘন ভ্রমণ শুরু করল। সে ইতিমধ্যেই প্রতি মাসে কমকরে দু সপ্তাহ ভ্রমণেই থাকত, কিন্তু এবার সে কমপক্ষে মাসে লাগাতার তিন সপ্তাহ করে বাইরে থাকা শুরু করল, তারপর হয়তো এক সপ্তাহের জন্য বাড়ি, তারপর আবার বাইরে।  এটা বলা যেতে পারে যে আমি সে গর্ভাবস্থার মাসগুলোতে তাকে খুব কমই দেখেছি।

শহরে যেহেতু আমরা একাই ছিলাম, আমার স্বামী এটা ভাবলো যে প্রসবের জন্য আমি শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে থাকলেই সবচেয়ে ভাল হবে।  একথা বলতেই হবে যে এটি তার একটি ভুল সিদ্ধান্ত ছিল, কারণ, আমার শ্বশুর বাড়ির লোকেরা কখনোই আমাকে পছন্দ করেননি।  এই সময় আমি সত্যিই বিষণ্ণ এবং একা অনুভব করতে শুরু করলাম।  আমি আমার স্বামীকে বলতাম আমি তাকে খুব মিস করছি, কিন্তু প্রতিবারই তিনি আমাকে বলতেন যে তিনি যা করছেন তা আমাদেরই ভবিষ্যতের জন্য।

শিশুটি জন্মগ্রহণ করল, আমরা বাড়ি ফিরে এলাম, এবং শীঘ্রই উপলব্ধি করলাম, যে মানুষটিকে আমি ভালবেসে বিয়ে করেছিলাম সে এখন আমার চারপাশে কোথাও নেই!  এখন, এমনকি যখন কোনো উপলক্ষে  সে বাড়িতে থাকে, আমাদের মুধ্যে কথা বলার কিছুই থাকে না।  আমি হয়তো তাকে শিশুটির সম্পর্কে কিছু বললাম, কিন্তু তাতে তার আর কোনও আগ্রহ দেখা যায় না।

সে হয়তো তার ল্যাপটপ, তার মেসেজ এবং তার ফোনকল নিয়ে খুবই ব্যস্ত, এমনকি কিছু সপ্তাহান্তিক ছুটির দিনেও তার ব্রেকফাস্ট মিটিং বা ডিনার মিটিং নিয়েই ব্যস্ত রয়ে গেল।  আমার জন্য, শুধু আমি আর আমার বাচ্চা, এবং ধীরে ধীরে আমি এতেই আনন্দ পেতে এবং এটাই আমার জীবন বলে মেনে নিতে শুরু করলাম।

সত্যি কথা বলতে কি আমরা পরস্পর থেকে অনেক দূরে সরে গিয়েছিলাম এবং আমি কোনও পথ খুঁজে পাচ্ছিলাম না যাতে ভাল কিছু হতে পারে।  আমি তার সঙ্গে বেশ কয়েকবার কথাও বললাম, কিন্তু কিছুই বললালো না।  প্রকৃতপক্ষে, এই ক'বছরে আমরা একে অপরের বন্ধু বা সহকর্মীদেরও চিনি না।

আমরা ঠিক করলাম যে এবার দ্বিতীয় সন্তান আসুক, কারণ আমরা দেখতে পাচ্ছিলাম যে শেষ পর্যন্ত বিয়েটা হয়তো ফলপ্রসূ হবে না, আর আমরা চাইছিলাম না যে আমাদের বাচ্চাটা একা হয়ে যাক।  সে সিদ্ধান্তটা নেওয়ার জন্য আমি আজ প্রসন্ন বোধ করছি কারণ, যাই হয়ে যাক না কেন, তারা তাদের জীবনে পরস্পরের সর্বোত্তম বন্ধু এবং সহায় পেয়ে গেছে।

দু বছর আগে আমাদের বিয়েকে পুনরুজ্জীবিত করার জন্য আমরা ম্যারেজ কাউন্সেলিং ও থেরাপী শুরু করি।  কয়েক মাস আগে আমরা দেশের সবচেয়ে বড় ম্যারেজ কাউন্সেলর ও সেক্সোলজিস্টের কাছে যাওয়া শুরু করি (কারণ আমার দ্বিতীয় সন্তান, যার বয়স এখন ৯ বছর, সে গর্ভে আসার পর থেকেই আমাদের মধ্যে কোনো দৈহিক সম্পর্ক হয় নি)।

আমরা আমাদের সমস্যা সম্পর্কে স্পষ্ট করে জানিয়েছিলাম এবং আমাদের অনুভূতি ও উদ্দেশ্যর প্রতিও সৎ ছিলাম।

জানেন, কাউন্সিলর আমাকে কি বললেন?  শুনলে আপনি আঁতকে উঠবেন .....

"বাইরে বেরোন এবং মজা করুন।  অনেক চমৎকার পুরুষ আছে যারা আপনার সাথে বাইরে যেতে পছন্দ করবে, আপনাকে শুধু একটা ইশারা করতে হবে এবং আপনি যাকে চাইবেন, পেয়ে যাবেন।  কেন আপনি শুধু শুধু এই নির্ঝঞ্ঝাট বিয়ে ভেঙে ফেলে একটি একক মহিলার ঝামেলাতে যেতে চাইছেন?  যদি আপনি আবার  প্রেমে পড়েন এবং আবারও এরকমই ঘটে, তখন কি হবে?  আপনার যা যা দরকার সবকিছু আছে।  আপনার কোন আর্থিক সমস্যা নেই।  শুধু আপনার ভাল যৌন সঙ্গী প্রয়োজন, আর তার জন্য, আপনি সত্যিই  দারুণ দারুণ পুরুষ পেয়ে যাবেন।  শুধু নিশ্চিত করতে হবে যে প্রেমে পড়া চলবে না আর অপরাধ বোধেও ভোগা চলবে না।  আরে, সুখী থাকার জন্য এটা আপনার অধিকার, তাই একদম চিন্তা করবেন না।"

আমি আঁতকে উঠেছিলাম।  আমি জানি না হে কিভাবে প্রতিক্রিয়া জানাব!

অবশ্যই আমি এই ব্যক্তির সঙ্গে আর দেখা করিনি।  কিন্তু আমি নিশ্চিত যে তিনি আমার স্বামীকেও একই কথা বলেছেন।   সে কিছুই প্রকাশ করে নি, এবং যখন আমি আমার স্বামীকে জিজ্ঞেস করলাম, তিনি আমার প্রশ্নটি উপেক্ষা করলেন।  যদি তিনি ইতিমধ্যে ওই পরামর্শদাতার পরামর্শ অনুসরণ করছেন?  আমি আগে  অসুখী ছিলাম আর এখন আমি তীব্র চাপে আছি ও বিষণ্ণ আছি।

আমার কি করা উচিৎ?

*পরিচয় গোপন রাখার জন্য লেখিকার নাম উহ্য রাখা হয়েছে।