অবশ্যই দর্শনীয় : কারিনা ও রণবীরে সঙ্গে রাজ কাপুরের এই পুরোন ভিডিও আপনাকে আপনার দাদুর কথা মনে পড়িয়ে দেবে!

lead image

হে ভগবান!!! এটা এত সুন্দর!!!

আমাদের সবারই দাদু-দিদার সঙ্গে কাটানো সময়ের কিছু স্মৃতি আছে যা সারাজীবন সঙ্গে থেকে যায়। আমার এখনও মনে আছে, যখন আমি উচ্চ শিক্ষার জন্য মুম্বাই গেলাম তখন দাদু প্রতি সপ্তাহে কেমন আমাকে চিঠি লিখত আর আমি সে চিঠির জন্য কেমন অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে থাকতাম। সে চিঠিগুলি এখনও আমার সঙ্গে আছে এবং যখনই দাদুর কথা মনে পড়ে আমি সে চিঠি বের করে আবার পড়ি।

আপনি নিশ্চয়ই একমত হবেন যে আমরা সবাই মা-বাবা ও দাদু-দিদার পুরোনো ভিডিও বা ফটো দেখতে ভালবাসি, আর এগুলি আমাদের স্মৃতির সরণি বেয়ে সেইসব দিনে ফিরিয়ে নিয়ে যায়।

জেড়তুতো খুড়তুতো ভাইবোন কারিনা এবং রণবীরের সঙ্গে তাঁদের প্রবাদপ্রতিম চলচ্চিত্র নির্মাতা দাদু রাজ কাপুরের এই ভাইর‍্যাল ভিডিওটি দেখলে আপনারও সেই অনুভুতি হবে। এই ভিডিওটি সম্ভবত রাজ কাপুরের জন্মদিনের বিখ্যাত পারটিগুলির একটিতে তোলা হয়েছিল এবং এর মধ্যে হৃদয়গ্রাহী দৃশ্য হচ্ছে যখন কারিনা তাঁর দাদুর ওপর চড়ে তাঁকে বার বার চুমু খাচ্ছেন।

তিনি তাঁর মা-বাবা ববিতা এবং রণধীর কাপুরের সঙ্গে একটি কালো পোশাক পরে এসেছিলেন। একে একে সবাই পরিবারের কর্তা কে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালেন, কিন্তু এই ভিডিওর কেন্দ্রবিন্দু নিঃসন্দেহে এই বাচ্চা মেয়েটি।

অন্যদিকে রণবীর এখনকার সুপারস্টার ইমেজের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা আর তাঁকে দাদু তাঁকে পার্টির উপযুক্ত পোশাক পরে আসতে বললেন, "যাও, ভাল কাপড় পরে এস"।

মেয়েটি অবশ্য অনুষ্ঠানের জন্য সেজেই এসেছিল আর তাকে লেস লাগানো ফ্রক এবং মামানসই চুলের ক্লীপে অসাধারণ দেখাচ্ছিল। ভিডিওতে রণবীরের বোন রিধিমাকেও দেখা যাচ্ছে, যে চিন্তায় আছে যে পাছে কারিনা তার উপহার পেয়ে গেছে ... বোধহয় সে তারটাও পেতে চাইছিল! যেমন আর সব বাচ্চারা করে থাকে।

শেষে, রণবীর ও কারিনাকে কিছু মজার কথাবার্তা বলতে এবং কারিনাকে দেখা যাচ্ছে যে রণবীরের কথায় বেশ মজা পেয়েছে! এই ভিডিওটি সিমি গারেওয়াল এর রঁদেভুতে প্রসারিত হয়েছিল যখন কভি খুশী কভি গম এর পর কারিনা রাতারাতি আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। পুরো ভিডিওটি দেখুন, ছোটবেলায় কারিনা ও রণবীর কতো ক্যুট ছিলেন!

দাদু দিদিমার ভূমিকা

ভিডিওতে যে স্নেহ দেখতে পাওয়া যাচ্ছে তা দেখাচ্ছে যে রাজ কাপুর কেমন তাঁর নাতি-নাতনিকে ভালবেসে কাছে ডাকছেন আর কারিনাকে "আমার সুইটো" বলে সম্বোধন করছেন। তারপর তিনি তাকে বলছেন সবাইকে অভিবাদন করতে, "সবাইকে হাত জোড় করে নমস্কার করবে, হ্যাঁ"।

সব দাদু-দিদাই কি এরকম নন? তারা শুধু আপনার সন্তানকে নিঃশর্ত ভালই বাসেন না তাঁরা তাঁদের পারিবারিক মূল্যবোধকেও নাতি-নাতনির মধ্যে সঞ্চারিত করেন।

  • প্রকৃতপক্ষে, দাদু-দিদারা ছোট্ট শিশুটির মধ্যে মূল্যবোধ গড়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। দুঃখের বিষয়, আজকের অনু পরিবারের যুগে বাচ্চারা সেই সব মূল্যবোধ ও নীতিকথা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে যা তাদের মা-বাবা, তাঁদের মা-বাবার কাছ থেকে পেয়েছিলেন।
  • তাঁদের বাচ্চাদের মধ্যে যে মূল্যবোধ, বিশ্বাস এবং নীতিবোধ মা-বাবারা চান, দাদু-দিদারা সেইসব শেখাবার অতি আবশ্যক মাধ্যন হতে পারেন। কারণ শিশুরা সর্বদা মা-বাবার কথা শুনতে পছন্দ করে না তাই দাদু-দিদারা অনায়াসে প্রতিদিনকার জীবনের সহজ পাঠ আপনার বাচ্চাকে শিখিয়ে দিতে পারেন।
  • যারা শিশুদের সঙ্গে তাঁদের মূল্যবান সময় দিতে পারেন না সেই সব কর্মরতা মা-বাবাদের জন্য দাদু-দিদারা অতি প্রয়োজনীয় সাহায্যের একটি উপায় হতে পারেন ।
  • তাঁরা শিশুদের সঙ্গে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে আবেগগপূর্ণ ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তুলতেও সাহায্য করেন আর তাদের ঘনিষ্ঠ পরিবারের গুরুত্ব বোঝাতে পারেন।